গলায় ফাঁস না অন্যকিছু! গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুতে ব্যপক হট্টগুল.......লিংকে বিস্তারিত
গলায় ফাঁস না অন্যকিছু! গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুতে ব্যপক হট্টগুল.......লিংকে বিস্তারিত

তেলিয়ামুড়া , ২১ এপ্রিল : নিজ ঘরেই রহস্যজনক মৃত্যু এক গৃহবধূর। ঘটনা তেলিয়ামুড়া থানাধীন চাকমাঘাট বাজার সংলগ্ন এলাকায়। ঘটনা বুধবার সকালে।
 ঘটনার বিবরণে জানা যায়, তেলিয়ামুড়া থানাধীন চাকমাঘাট বাজার সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা সন্তোষ  দেবনাথের স্ত্রী মালতি দেবনাথ পারিবারিক কলহের জেরে নিজ ঘরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে বলে জানা যায়। তবে মৃতার বাপের বাড়ির লোকজনদের অভিযোগ, মালতি দেবনাথ কে তার স্বামী সন্তোষ এবং ছেলে শাকিল সহ তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন মিলে মালতি কে খুন করেছে।    মৃতার বাপের বাড়ির লোকজনদের অভিযোগ, মালতি এবং তার স্বামী সন্তোষের মধ্যে প্রায়শই ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকতো। যদিও এলাকাবাসীদের কাছে থেকে তেমন কোনো খবর নেই। মালতি দেবনাথ ও তার ছেলে শাকিল দেবনাথ আগরতলার যোগেন্দ্র নগর স্থিত বর্মন টিলা এলাকায় থাকতো। চাকমাঘাটে স্বামীর বাড়িতে বিগত কিছুদিন পূর্বে বেড়াতে এসছিল মা ছেলে। যদিও মালতি সন্তোষের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী। মৃতার বাপের বাড়ির লোকজনদের আরও অভিযোগ তার ছেলে শাকিল তার মাকে প্রায়শই মারধর করতো বাইক কিনে দেওয়ার জন্য। তাছাড়া শাকিল সবসময় ড্রাগসের নেশায় আসক্ত থাকে। পরিবারে এই বিষয়গুলি নিয়েই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকত বলে অভিযোগ মৃতার বাপের বাড়ির লোকজনদের।
     গতকাল তথা মঙ্গলবার ও নাকি স্বামী স্ত্রীর মধ্যে কোন এক বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। অবশেষে বুধবার সকাল আনুমানিক সাড়ে ছয়টা  নাগাদ ঘুম ভেঙ্গেই ছেলে এবং স্বামী মালতির ঝুলন্ত মৃতদেহ প্রত্যক্ষ করে। ঘটনার খবর দেয় তেলিয়ামুড়া থানায় এবং মৃতার বাপের বাড়িতে। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হলো পুলিশ আসার আগেই ঝুলন্ত মৃতদেহ টিকে নামিয়ে নেওয়া হয়। পরবর্তীতে তেলিয়ামুড়া থানার পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য তেলিয়ামুড়া মহকুমা হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। পুলিশ একটি অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে। এখন পুলিশের তদন্তের পরই বেরিয়ে আসবে মৃত্যুর আসল রহস্য। 

আরো পড়ুন